হবিগঞ্জে সমাজসেবা অধিদপ্তরের বিকাশের ভুলের মাসুল দিচ্ছেন ৫১৬০ ভাতাভোগী

প্রকাশিত: ৬:৪৫ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২১, ২০২১

হবিগঞ্জে সমাজসেবা অধিদপ্তরের বিকাশের ভুলের মাসুল দিচ্ছেন ৫১৬০ ভাতাভোগী

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি :: হবিগঞ্জে সমাজসেবা অধিদফতর ও বিকাশ কর্তৃপক্ষের ভুলের মাসুল দিতে হচ্ছে পাঁচ হাজার ১৬০ জন ভাতা ভোগীকে। গত ৯ মাস ধরে ভাতা না পেয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন তারা। দিনের পর দিন সমাজসেবা অধিদফতর ও বিকাশ অফিসে গিয়েও পাচ্ছেন না সমাধান। ভোগান্তি থেকে মুক্তি পেতে সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন তারা।

সমাজসেবা অধিদফতর বলছে, গত অর্থবছরের শেষদিকে ব্যাংক অ্যাকাউন্টের পরিবর্তে মোবাইল ব্যাংকিয়ের মাধ্যমে ভাতার অর্থ প্রদানের সুবিধা চালু করে সরকার। এজন্য প্রত্যেক ভাতাভোগীর বিকাশ নম্বর সংগ্রহ করা হয়। কিন্তু তথ্য হালনাগাদের সময় মোবাইল নম্বর, এনআইডি নম্বর, বয়স ওহ বিভিন্ন ভুল তথ্য লিপিবদ্ধ হওয়ায় এ জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে। মাঠ পর্যায়ে কাজ চলছে, এরই মধ্যে অনেকের সমস্যার সমাধান করা হয়েছে। ২-১ মাসের মধ্যেই সবাই ভাতা তুলতে পারবেন।

জানা গেছে, জেলায় ১০ ধরনের স্থায়ী ভাতাভোগীর সংখ্যা এক লাখ ২০ হাজার ৫২০ জন। আগে ব্যাংক অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে তিন মাস পর পর তাদের দেওয়া হতো ১৯ কোটি ৯০ লাখ ১৩ হাজার ৫৫০ টাকা।

ভাতাভোগী ফয়েজ উল্ল্যাহ জানান, এখন তার বয়স ৯৭ বছর। এরই মধ্যে তার শরীরে বিভিন্ন রোগ দেখা দিয়েছে। অভাবের সংসারে সরকারি ভাতাই তার একমাত্র আয়ের উৎস ছিল। সেই টাকা দিয়েই নিজের ওষুধসহ যাবতীয় সাংসারিক কার্যক্রম চালাতেন। দীর্ঘ ৯ মাস যাবত ভাতা না পাওয়ায় চার ছেলে-মেয়ে নিয়ে বিপাকে পড়েছেন।

কাউন্সিলর পান্না কুমার শীল জানান, অনেক ভাতাভোগী তার অফিসে গিয়ে সাহায্য চেয়েছেন। তাদের সমাজসেবা অফিসে পাঠিয়েও কোনো সমাধান পাওয়া যায়নি। দীর্ঘদিন ভাতা না পেয়ে তারা বিড়ম্বনায় পড়েছেন।

হবিগঞ্জ জেলা সমাজসেবা অধিদফতরের সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ জালাল উদ্দিন জানান, মাঠ পর্যায়ে কাজ চলছে। এরই মধ্যে অনেক সমস্যার সমাধান হয়েছে। দুই মাসের মধ্যেই সবাই ভাতা তুলতে পারবেন।

সংবাদ অনুসন্ধান ক্যালেন্ডার

MonTueWedThuFriSatSun

আমাদের ফেইসবুক পেইজ