৭ মাত্রার ভূমিকম্পে ধ্বংসস্তূপে পরিণত হতে পারে সিলেট

প্রকাশিত: ২:১২ অপরাহ্ণ, জুন ৯, ২০২১

৭ মাত্রার ভূমিকম্পে ধ্বংসস্তূপে পরিণত হতে পারে সিলেট

অতিথি প্রতিবেদক :: সিলেট একসময় অসম (আসাম) প্রদেশের অন্তর্গত ছিল। পুরো প্রদেশই ছিল ভূমিকম্পের ঝুঁকিতে। তখন সেখানে বিশেষ প্যাটার্নের ভবন নির্মাণ করা হতো। নব্বইয়ের দশকের আগ পর্যন্ত সিলেটে তৈরি হতো ‘আসাম প্যাটার্নের’ এমন বাড়ি। তবে এখন কোনো বিবেচনা ছাড়াই গড়ে উঠছে বহুতল ভবন।

আশির দশক পর্যন্ত সিলেটে মিথ প্রচলিত ছিল, হজরত শাহজালাল (রহ.)-এর দরগাহের মিনারের চেয়ে উঁচু ভবন সিলেট শহরে নির্মাণ করা হলে তার প্রতি অসম্মান প্রদর্শন হবে এবং ভবনটি ভেঙে পড়বে।

হজরত শাহজালাল (রহ.)-এর মাজারটি সিলেট নগরের একেবারে মাঝখানে অবস্থিত। এর মিনারটি প্রায় পাঁচতলা ভবনের সমান। প্রচলিত ওই ধারণার জন্য আশির দশক পর্যন্ত সিলেটে পাঁচতলা থেকে উঁচু ভবন নির্মাণ করা হতো না।

সে সময়ে সিলেটের বেশির ভাগ বাসাবাড়িই ছিল একতলা, টিনশেডের।

সিলেটের নাগরিকদের বহুতল ভবন নির্মাণ না করার একটা বৈজ্ঞানিক ভিত্তিও ছিল। ভৌগোলিক অবস্থানগত কারণে এটি ভূমিকম্পপ্রবণ এলাকা। ভূমিকম্পের একেবারে উৎপত্তিস্থলেই সিলেটের অবস্থান। ফলে সিলেটে বহুতল ভবন নির্মাণ ছিল ঝুঁকিপূর্ণ।

এ কারণে এ অঞ্চলের একতলা বাড়িগুলোর নাম দেয়া হয়েছিল ‘আসাম প্যাটার্ন’।

সিলেট একসময় অসম (আসাম) প্রদেশের অন্তর্গত ছিল। পুরো প্রদেশই ভূমিকম্প ঝুঁকির আওতায়। সে কারণে নির্মাণ করা হতো এই বিশেষ প্যাটার্নের ভবন।

তবে নব্বইয়ের দশকে বদলে যেতে লাগে সিলেটের চিত্র। একে একে গড়ে উঠতে থাকে আকাশছোঁয়া ভবন। একতলা বাড়ি ভেঙে নির্মিত হয় বিশাল অ্যাপার্টমেন্ট, দিঘি দখল করে সুউচ্চ বিপণিবিতান, ডোবা-হাওর দখল করে উঠতে থাকে হাউজিং প্রকল্প।

অপরিকল্পিতভাবে, কোনো নিয়মনীতি, নিরাপত্তার তোয়াক্কা না করেই গড়ে উঠেছে এসব ভবন। নগর কর্তৃপক্ষের উদাসীনতায় গড়ে ওঠা এসব ভবন সিলেটকে করে তুলেছে আরও ঝুঁকিপূর্ণ।
বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) তিন বছর আগের এক জরিপে দেখা গেছে, সিলেটে এক লাখ বহুতল ভবন রয়েছে। এসব ভবনের ৭৫ শতাংশ ছয়তলা বা তার চেয়ে বেশি। তবে সিলেট সিটি করপোরেশনের হিসাবে হোল্ডিংই আছে ৭০ হাজার।

বিশেষজ্ঞদের মতে, সিলেটে রিখটার স্কেলে ৭ মাত্রার ভূমিকম্প হলে এ অঞ্চলের প্রায় ৮০ ভাগ স্থাপনা ধসে পড়তে পারে। এতে প্রাণ হারাবে প্রায় ১২ লাখ মানুষ এবং ক্ষতি হবে ১৭ হাজার কোটি টাকার।

সোমবার সন্ধ্যা ছয়টা দিকে সিলেটে দুই দফা ভূমিকম্প অনুভূত হয়। এই ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল সিলেটের দক্ষিণ সুরমা এলাকায়। এর আগে গত ২৯ মে সকাল ১০টা থেকে বেলা ২টার মধ্যে অন্তত পাঁচটি ভূকম্পে কেপে ওঠে সিলেট। পরদিন ভোরে আবার ভূমিকম্প হয়। যার সবগুলোর কেন্দ্রস্থল জৈন্তাপুর এলাকায়।

স্বল্প সময়ের মধ্যে কয়েক দফা ছোট ভূমিকম্প হওয়ায় সিলেটজুড়ে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। আতঙ্ক থাকলেও সিলেটে নেই ভূমিকম্পের ক্ষয়ক্ষতি কমানো ও উদ্ধারকাজ চালানোর মতো কোনো প্রস্তুতি ও সচেতনতা।

সক্রিয় ভূকম্পন এলাকা

ফরাসি ইঞ্জিনিয়ারিং কনসোর্টিয়াম ১৯৯৮-এর জরিপ অনুযায়ী ‘সিলেট অঞ্চল’ সক্রিয় ভূকম্পন এলাকা হিসাবে চিহ্নিত হয়েছে।

১৮৩৩, ১৮৮৫, ১৮৯৭, ১৯০৫, ১৯৩০, ১৯৩৪, ১৯৪৭ ও ১৯৫০ সালের বড় ভূকম্পনের মধ্যে দুটিরই উৎপত্তিস্থল ছিল (এপি সেন্টার) সিলেটের জৈন্তার ভূগর্ভে। একই উৎপত্তিস্থল থেকে ঘটে যাওয়া ১৮৯৭ সালের ভয়াবহ ভূমিকম্পে সিলেট অঞ্চল সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। সেটি ভূকম্পনের ইতিহাসে ‘দ্য গ্রেট আসাম আর্থকোয়েক’ নামে পরিচিত। রিখটার স্কেলে এর মাত্রা ছিল ৮ মাত্রার বেশি।

এই ভূমিকম্পের কারণে ব্রহ্মপুত্র নদের গতিপথ পরিবর্তনসহ সিলেট ও অসম অঞ্চলের উল্লেখযোগ্য ভৌগোলিক পরিবর্তন ঘটে।

১৯৫০ সালে অসমে বড় ধরনের ভূমিকম্পের কারণে সিলেট অঞ্চলেও ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়ছিল। এই ভূমিকম্পটি ‘আসাম-তিব্বত আর্থকোয়েক’ নামে ইতিহাসে পরিচিত রয়েছে। রিখটার স্কেলে এর মাত্রা ছিল ৮.৬।

৭ মাত্রার ভূমিকম্প হলেই বিপুল ক্ষতির শঙ্কা

বছর দশেক আগে বাংলাদেশ, জাপান ও শ্রীলঙ্কার একটি বিশেষজ্ঞ দল সিলেট নগরীর ছয় হাজার ভবনের ওপর জরিপ চালিয়ে একটি গবেষণা প্রতিবেদন তৈরি করে। এই রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়, রিখটার স্কেলে ৫ মাত্রার ভূমিকম্প হলে সিলেটের শতকরা ৭০ থেকে ৮০ ভাগ ভবন ধসে পড়বে। এতে ক্ষতি হবে ৮ হাজার কোটি টাকার। প্রাণহানি হবে ৭ থেকে ৮ লাখ মানুষের।

গবেষকদের মতে, সিলেটের বেশির ভাগ বাণিজ্যিক ভবনই অপরিকল্পিত এবং মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ। রিখটার স্কেলে ৭ বা তার চেয়ে বেশি মাত্রার ভূমিকম্প হলে সেগুলো ধসে পড়বে। পাল্টে যেতে পারে সিলেটের মানচিত্রও। ক্ষতিগ্রস্ত হবে সিলেটের গ্যাস এবং তেলক্ষেত্রগুলো। কেবল গ্যাস ফিল্ডেই ক্ষতি হবে ৯ হাজার কোটি টাকার। পরিবেশ বিপর্যয়ও নেমে আসবে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, অপরিকল্পিত বাসাবাড়ি নির্মাণের কারণে সবচেয়ে বেশি ক্ষতির সম্মুখীন হবে নগরীর শাহজালাল উপশহর, আখালিয়া, বাগবাড়ি, মদিনা মাকের্ট এলাকা।

গবেষণার তথ্য অনুযায়ী, সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালসহ বহু বেসরকারি হাসপাতাল রয়েছে, যেগুলো ভূমিকম্পের সময় ধসে পড়ার ঝুঁকিতে থাকবে। তাতে প্রাণহানিও বাড়বে। কারণ, তখন ভূমিকম্পে আহত ব্যক্তিদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করা যাবে না।

শ্রীলঙ্কার অধ্যাপক আরঙ্গা পোলা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. হুমায়ূন আখতার, অধ্যাপক ড. আপ্তাব আহমেদ, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. জহির বিন আলম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মাকসুদ কামাল, ড. জাহাঙ্গীর আলমসহ জাপান থেকে আসা আরও দুজন বিশেষজ্ঞ এই গবেষণা প্রতিবেদনটি তৈরি করেন।

গবেষক দলের সদস্য ড. জহির বিন আলম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ভূমিকম্পের দিক থেকে সিলেট মারাত্মক ঝুঁকির মধ্যে থাকলেও তাৎক্ষণিক ক্ষতি-হ্রাস ও উদ্ধারকাজ চালানোর জন্য সিলেটে আধুনিক কোনো যন্ত্রপাতি নেই। ভূমিকম্পের ঝুঁকি মাথায় রেখে সংশ্লিষ্টদের এখনই প্রস্তুতি নেয়া উচিত।’

নেই প্রস্তুতি

সিলেটে নগরায়ণের ক্ষেত্রে ভূমিকম্প-ঝুঁকি মাথায় রেখে একটি মহাপরিকল্পনা (মাস্টারপ্ল্যান) প্রণয়নের প্রয়োজনীয়তার কথা দীর্ঘদিন ধরে বলে আসছেন বিশেষজ্ঞরা। তবে সেটি কার্যকর হয়নি। ফলে বহুতল ভবন নির্মাণ, নগর সম্প্রসারণ হচ্ছে অনেকটা খেয়ালখুশিমতো। হাওর, বিল, খাল-নালা, জলাভূমি ভরাট করে, পাহাড়-টিলা কেটে হাউজিং প্রকল্প গড়ে তোলা হচ্ছে। সেখানে ঝুঁকিপূর্ণভাবে বহুতল ভবন নির্মিত হচ্ছে। এতে ভূমিকম্পপ্রবণ সিলেটে ক্ষতির আশঙ্কা আরও বাড়ছে।

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. জহির বিন আলম বলেন, যে টেকনোটিক প্লেটে সিলেট অঞ্চল অবস্থিত, তা ক্রমেই উত্তর-পূর্ব দিকে সরে যাচ্ছে। প্রতি ১০০ বছরে তা এক মিটার সরছে। এ কারণে সিলেট অঞ্চলের ভূমিকম্পের ঝুঁকি দিনদিন আরও বাড়ছে।

এরপরও এর জন্য কর্তৃপক্ষের কোনো প্রস্তুতি দৃশ্যমান নয়। সরকারি ও বেসরকারি উদ্যোগে সভা-সেমিনার, কর্মশালা, ভূমিকম্পের মহড়া প্রদর্শনের মধ্যেই সীমাবদ্ধ।

সিটি করপোরেশনের প্রধান প্রকৌশলী নুর আজিজুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘২০১৬ সালে সবশেষ সিলেটের ঝুঁকিপূর্ণ ভবনগুলোর ব্যাপারে জরিপ চালানো হয়েছিল। এতে ৩২টি ভবন ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। সেগুলো তখন ভেঙে ফেলার উদ্যোগও নেয়া হয়। তবে বিভিন্ন জটিলতায় সে কাজ এগোয়নি।’

সিটি করপোরেশনের অনুমোদন ছাড়াই নগরীতে গড়ে উঠছে অনেক বহুতল ভবন। এতে বাড়ছে ভূমিকম্পে ক্ষতির ঝুঁকি।

আজিজুর জানান, ২৯ মের ভূমিকম্পের পর ওই ভবনগুলোর মধ্যে সাতটি বাণিজ্যিক ভবন বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘সিলেটে প্রায় ৭০ হাজার হোল্ডিং আছে। এর মধ্যে সাততলার ওপরে ভবন আছে অন্তত চার শটি। তবে সিটি করপোরেশনের হিসাবের বাইরে আরও অনেক বহুতল ভবন আছে।

‘নগরের বহুতল ভবনগুলো ভূমিকম্পসহনীয় কি না, তা পরীক্ষা করে দেখতে বিশেষজ্ঞরা পরামর্শ দিয়েছেন। আমরা দ্রুতই সে উদ্যোগ নেব। সব ঝুঁকিপূর্ণ ভবন আমাদের পক্ষে ভেঙে ফেলা সম্ভব নয়। তবে যে ভবনগুলো ভূমিকম্পসহনীয় নয় সেগুলোর সামনে সতর্কতামূলক সাইনবোর্ড টানিয়ে দেব।’

বিশেষজ্ঞদের মতে, সিলেটে সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন নগরীর সব ভবনকে ভূমিকম্প প্রতিরোধক করা। এ জন্য নতুন ভবন নির্মাণের আগে মাটি পরীক্ষা করতে হবে। মাটির ধরনের ওপর নির্ভর করে ভবনকে একতলা বা বহুতল করতে হবে।

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক জহির বলেন, সিলেটের ৭৪ দশমিক ৪ শতাংশ ভবনই ভূমিকম্পের কথা চিন্তা না করে তৈরি করা হয়েছে। এগুলো ভূমিকম্প প্রতিরোধকভাবে নির্মাণ করা হয়নি। ফলে ৭ মাত্রার ভূমকম্প হলেই ৮০ শতাংশ বহুতল ভবন ভেঙে পড়তে পারে।

তিনি বলেন, ‘ঝুঁকিপূর্ণ ভবনগুলো ভেঙে না ফেলে রেকটিফাইটিং করা যেতে পারে। সাপোর্টিং পাওয়ার দিয়ে ভূমিকম্প প্রতিরোধক হিসেবে ভবনগুলোকে গড়ে তোলা যেতে পারে। এই মূহূর্তে সবার আগে প্রয়োজন ভূমিকম্প সেন্টার নির্মাণ। সিলেটে শিগগিরই একটি ভূমিকম্প সেন্টার নির্মাণ করতে হবে।’

তিনি আরও জানান, জলাশয় ভরাট করে বহুতল ভবন নির্মাণ করা যাবে না। বিল্ডিং কোড লঙ্ঘন করে কোনো অবস্থাতেই ভবন নির্মাণ করা যাবে না।

দুর্যোগ মোকাবিলার সক্ষমতা নেই ফায়ার ব্রিগেডেরও

সিলেটে মাঝারি মানের ভূমিকম্প হলেও তার ক্ষয়ক্ষতি মোকাবিলার সক্ষমতা নেই ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সেরও। সিলেট বিভাগের ৩৮ উপজেলার মধ্যে মাত্র ১৪টিতে ফায়ার স্টেশন রয়েছে। সেগুলোতে আবার তেমন কোনো যন্ত্রপাতি নেই।

ফায়ার সার্ভিস সিলেটের সহকারী পরিচালক আনিসুর রহমান বলেন, ‘সিলেটের অনেক বহুতল ভবনই নির্মাণ করা হয়েছে অনুমোদনহীনভাবে। অলিগলির রাস্তাও সরু। ফলে আমাদের গাড়ি প্রবেশ করতে পারে না। এ ব্যাপারে নগর কর্তৃপক্ষকে উদ্যোগী হতে হবে।

‘দুর্যোগ মোকাবিলায় আমাদের যন্ত্রপাতিরও ঘাটতি রয়েছে। এ ব্যাপারে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা চলছে। এ ছাড়া ভূমিকম্প হলে উদ্ধার তৎপরতার জন্য স্বেচ্ছাসেবক তৈরি করার কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে। স্বেচ্ছাসেবকদের প্রশিক্ষণও দেয়া হচ্ছে ধারাবাহিকভাবে।’

আমাদের ফেইসবুক পেইজ