ঈদের জামায়াতে এসএমপির ১০ নির্দেশনা

প্রকাশিত: ৩:৫২ অপরাহ্ণ, জুলাই ৩০, ২০২০

ঈদের জামায়াতে এসএমপির ১০ নির্দেশনা

নিজস্ব প্রতিবেদক :: আসন্ন পবিত্র ঈদ-উল আযহার ঈদের জামায়াত পালনে ১০টি নির্দেশনা দিয়েছেন এসএমপি। নাগরিক জীবনের নিরাপত্তা বিধান এবং বৈশ্বিক মহামারী করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) প্রতিরোধে ওই ১০ নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে। জনস্বাস্থ্য বিবেচনায় সিলেট মহানগরবাসীকে ১৪৪১ হিজরী/২০২০ সালের পবিত্র ঈদ-উল-আযহার নামাজের জামায়াত স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ কর্তৃক জারিকৃত স্বাস্থ্যবিধি ও ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় হতে প্রাপ্ত নির্দেশনাবলী অনুসরণপূর্বক নি¤েœাক্ত বিষয়সমূহ প্রতিপালনের জন্য অনুরোধ করা হলো।

১। বর্তমানে সারা বিশ্বসহ আমাদের দেশে করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) এর কারনে ধর্মপ্রাণ মুসল্লীদের জীবনের ঝুঁকি বিবেচনা করে এবছর ঈদগাহ বা খোলা জায়গার পরিবর্তে নিকটস্থ মসজিদে ঈদ-উল-আযহার নামাজ আদায় করার জন্য অনুরোধ করা হলো। স্বাস্থ্যবিধি মেনে প্রয়োজনে একই মসজিদে একাধিক জামায়াতের ব্যবস্থা করা যেতে পারে;
২। ঈদের নামাজের জামায়াতের সময় মসজিদে কার্পেট বিছানো যাবে না। ঈদের নামাজের জামায়াতের পূর্বে সম্পূর্ন মসজিদ জীবানুনাশক দ্বারা পরিস্কার করতে হবে। ধর্মপ্রাণ মুসল্লিগণ প্রত্যেকে নিজ নিজ দায়িত্বে জীবানুমুক্ত করে জায়নামাজ নিয়ে আসবেন;
৩। করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধ নিশ্চিতকল্পে মসজিদের প্রবেশদ্বারে সাবান/হ্যান্ডস্যানিটাইজার রাখতে হবে;
৪। প্রত্যেককে নিজ নিজ বাসস্থান থেকে ওযু করে মসজিদে আসতে হবে এবং ওযু করার সময় কমপক্ষে ২০ সেকেন্ড সাবান দিয়ে হাত ধুতে হবে;
৫। ঈদের নামাজের জামায়াতে আগত ধর্মপ্রাণ মুসল্লীগণকে অবশ্যই মাস্ক পরে মসজিদে আসতে হবে। মসজিদে সংরক্ষিত জায়নামাজ ও টুপি ব্যবহার করা যাবে না;
৬। ঈদের নামাজ আদায়ের সময় কাতারে দাঁড়ানোর ক্ষেত্রে সামাজিক দুরূত্ব ও স্বাস্থ্য বিধি অনুসরণ করে দাঁড়াতে হবে এবং এক কাতার অন্তর অন্তর কাতার করতে হবে;
৭। শিশু, বায়োবৃদ্ধ, যে কোন অসুস্থ ব্যক্তি এবং অসুস্থদের সেবায় নিয়োজিত ব্যক্তি ঈদের নামাজের জামায়াতে অংশগ্রহণ করতে পারবেন না;

৮। সর্বসাধারণের সুরক্ষা নিশ্চিত কল্পে, স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ, স্থানীয় প্রশাসন এবং আইন শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণকারী বাহিনীর নির্দেশনা অবশ্যই অনুসরণ করতে হবে;
৯। করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে মসজিদে জামায়াত শেষে কোলাকুলি এবং পরস্পর হাত মেলানো পরিহার করার জন্য অনুরোধ করা যাচ্ছে;

১০। করোনা মহামারী থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য পবিত্র ঈদ-উল-আযহার নামাজ শেষে মহান রাব্বুল আলামিনের দরবারে দোয়া করার জন্য খতিব ও ইমামগণকে অনুরোধ করা হলো;

উপরোক্ত নির্দেশনাবলী মসজিদের খতিব, ইমাম এবং মসজিদ পরিচালনা কমিটি বাস্তবায়ন করবেন।

এছাড়াও যেকোন প্রয়োজনে পুলিশকে তথ্য দিতে এবং প্রয়োজনে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের সহায়তা নিতে এসএমপি কন্ট্রোল রুম (০৮২১-৭১৬৯৬৮, ০১৭১৩-৩৭৪৩৭৫, ০১৯৯৫-১০০১০০) যোগাযোগ করার আহŸান করা হয়েছে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ