ছাতকে ৩ চাঁদাবাজকে আটকে থানায় দিলো জনতা

প্রকাশিত: ১:০৫ পূর্বাহ্ণ, মে ২৩, ২০২০

ছাতকে ৩ চাঁদাবাজকে আটকে থানায় দিলো জনতা

ছাতক প্রতিনিধি :: সুনামগঞ্জের ছাতকে পিয়াইন নদীতে নৌ-যানে চাঁদাবাজী করার সময় ৩ চাঁদাবাজকে আটক করেছে জনতা। এ ঘটনায় ছাতক থানায় একটি চাঁদাবাজী মামলা দায়ের করা হয়েছে।

শুক্রবার (২২ মে) সকাল ১১টার দিকে উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের জামুরা গ্রাম সংলগ্ন পিয়ানই নদীতে ধাওয়া করে ওই ৩ চাঁদাবাজকে আটক করে ছাতক থানায় সোপর্দ করা হয়।

আটককৃত চাঁদাবাজরা হল কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার তেলিখাল ইউনিয়নের চাটিবহর গ্রামের নূরুল হকের পুত্র মঈনুল ইসলাম, লেদাই মিয়ার পুত্র এনামুল হক ও ফজলু মিয়ার পুত্র লায়েক মিয়া।

স্থানীয়রা জানান, ছাতকে সুরমা, চেলা ও পিয়ানই নদীতে চলাচলরত বাল্কহেড, কার্গো ও ইঞ্জিন চালিত নৌকা থেকে নিয়মিত চাঁদাবাজী করে যাচ্ছে একটি চাঁদাবাজ চক্র। চাঁদাবাজরা ইঞ্জিনচালিত ছোট নৌকা নিয়ে সকাল-সন্ধ্যো নৌ-পথে ঘুরে-ঘুরে ভয়-ভীতি প্রদর্শন করে নৌযান থেকে চাঁদা আদায় করে থাকে।

প্রতি বাল্কহেড ও কার্গো থেকে চাঁদাবাজরা ২ থেকে ৪ হাজার টাকা পর্যন্ত চাঁদা আদায় করে থাকে। বর্ষা মৌসুমের সময় চাঁদাবাজ চক্র বেপরোয়া হয়ে উঠে। অনেক সময় পর্যাপ্ত চাঁদা না পেলে এসব চাঁদাবাজরা নৌ-শ্রমিকদের মারপিটও করে থাকে বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন।

সকালে জামুরা এলাকায় একটি বাল্কহেড থেকে টোলের নামে রশীদ দিয়ে জোরপূর্বক চাঁদা আদায় করার সময় স্থানীয় লোকজন ধাওয়া করে ৩ চাঁদাবাজকে আটক করতে সক্ষম হয়।

জনতার ধাওয়ায় অন্যান্য চাঁদাবাজরা এসময় নৌকা নিয়ে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় এমভি গঙ্গা বাল্কহেডের পরিচালক জজ মিয়া বাদী হয়ে ছাতক থানায় একটি চাঁদাবাজী মামলা দায়ের করেন।

ছাতক থানার ওসি মোস্তফা কামাল ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, এ ঘটনায় মামলা নেয়া হয়েছে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

আমাদের ফেইসবুক পেইজ