কানাইঘাটে পুরোদমে জমে উঠেছে পাইকারী সবজি বাজার

প্রকাশিত: ৫:৫৩ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১০, ২০২১

কানাইঘাটে পুরোদমে জমে উঠেছে পাইকারী সবজি বাজার

আমিনুল ইসলাম কানাইঘাটঃ
সিলেটের সীমান্তবর্তী কানাইঘাট উপজেলায় পুরোদমে জমে উঠেছে শীতকালীন পাইকারী সবজি বাজার। এসব শাক-সবজি’র বাগান উপজেলার রাজাগঞ্জ ইউপি থেকে শুরু করে উত্তরের সীমান্তবর্তী মুলাগুল আর পুর্বে দনা সীমান্ত পর্যন্ত সুরমা ও লোভা নদীর উভয় চর জুড়ে গড়ে উঠেছে। এ ছাড়াও পাহাড় বেষ্ঠিত এ উপজেলার অসংখ্য ছোট বড় টিলার নিচে চাষ করা হয় নানা ধরণের শাক-সবজি। আর শীতকালীন এসব সবজি পুরোদমে বাজারে উঠার কারনে জমজমাট হাট বসেছে কানাইঘাট বাজার সংলগ্ন সুরমা নদীর তীরে। গতকাল রবিবার সকাল ৯ টায় সরেজমিনে দেখা যায় দেশীয় নানা রকম শাক সবজি নিয়ে এসেছেন উপজেলার বিভিন্ন প্রান্তের চাষীরা। এর মধ্যে ফুলকপি, বাধাঁকপি, টমেটো, সালগম, শিম, মুলা, বেগুন, শসা, পানী লাউ, মিষ্টি লাউ ছিল লক্ষণীয়। সুরমার তীরে গড়ে উঠা এ বাজারে বেশ কয়েকজন চাষীর সাথে কথা হলে তারা জানান, এসব সবজি এলাকার মানুষের চাহিদা পুরণ করে দেশের বিভিন্ন জেলার পাইকারী ক্রেতাদের কাছে তারা বিক্রি করছেন। এর মধ্যে উপজেলার পাত্রমাটি গ্রামে কৃষক জাহেদ হোসেন, জসিম উদ্দিন, মেচার চরের কৃষক আব্দুল কাদির, আফতাব আলী ও সুতারগ্রামের কৃষক সাদেক আহমদ জানান এবার কানাইঘাটে সবজির বাম্পার ফলন হয়েছে। তবে দাম কম হওয়াতে তারা খুশি নন। কারন হিসাবে তারা বলেন যে পরিমান পুজি ব্যায় করে ও শ্রম দিয়ে সবজী চাষ করেছেন সে পরিমান দাম তারা পাইকারী বাজারে পাননি। তাদের মতে এ এলাকায় সবজি সংরক্ষণের কোন ব্যবস্থা বা হিমাগার না থাকায় তাদের পাইকারী বাজারে কম দামে সবজি বিক্রি করতে হয়। যদি কোন হিমাগার থাকতো তাহলে হয়তো তারা লাভবান হতে পারতেন। এসব ব্যবস্থা না থাকায় অনেকেই হতাশা প্রকাশ করেছেন। উল্লেখ্য এখানে প্রত্যেক শনি ও মঙ্গলবার সাপ্তাহিক হাট বসলেও পাইকারী সবজির হাট প্রতিদিনই বসে। সকাল ৮ টা থেকে শুরু করে সকাল সাড়ে ১০টা পর্যন্ত জমজমাট হাট চলে। ভোর হতে উপজেলার বিভিন্ন স্থান থেকে কৃষকরা নৗকা যোগে এখানে সবজি এনে পাইকারী বিক্রি করেন। এতে দেশের বিভিন্ন স্থানের শত শত ক্রেতারা পাইকারী সবজি কিনতে এখানে আসেন। পরে দুর-দুরান্ত থেকে আসা পাইকারী ক্রেতারা গাড়িতে করে সবজি কিনে সিলেট শহর সহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় নিয়ে যান। উপজেলা কৃষি অফিসের হিসাব মতে কানাইঘাটে এবার ২২ শ’ হেক্টর জমিতে সবজির বাম্পার ফলন হয়েছে। এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা তানভীর আহমদ সরকার জানান সবজি সংরক্ষণের জন্য দেশে এখনো উপযুক্ত কোন ব্যবস্থা নেই। তারপরও তিনি তার দফরের বিভিন্ন সভা সেমিনারে বিশেষ করে কানাইঘাটের সবজি সংরক্ষণের ব্যবস্থার কথা তুলে ধরেন।

সংবাদ অনুসন্ধান ক্যালেন্ডার

আমাদের ফেইসবুক পেইজ