সাভারে মাদ্রাসা ছাত্রী ধর্ষণ: অধ্যক্ষের স্বীকারোক্তি

প্রকাশিত: ৮:৪৯ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২২, ২০২১

সাভারে মাদ্রাসা ছাত্রী ধর্ষণ: অধ্যক্ষের স্বীকারোক্তি

 

অনলাইন ডেস্ক ::
ঢাকার আশুলিয়ায় মাদ্রাসা ছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার অধ্যক্ষ তৌহিদ বিন আজহার আদালতে দোষ স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন। ঢাকার জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম মনিকা খান তার খাসকামরায় আশুলিয়ার চাঁনগাও এলাকার হুরে জান্নাত মহিলা ও নুরে মদিনা মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষের জবানবন্দি গ্রহণ করেন। শুক্রবার বিকেল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত আজহার এ জবানবন্দি দেন।

১৬৪ ধারায় জবানবন্দি গ্রহণ শেষে তাকে কারাগারে পাঠানোর বিষয়টি নিশ্চিত করে আদালতের প্রসিকিউশন পুলিশের ওসি মেজবাহ উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘যতদূর জানতে পেরেছি, তিনি ঘটনার পূর্বাপর সবিস্তারে বর্ণনা করেছেন। ধর্ষণের ঘটনা স্বীকার করেছেন। তার পক্ষে কোনো আইনজীবী আদালতে দাঁড়াননি।’

জানা গেছে, তৌহিদ বিন আজহারকে আসামি করে বৃহস্পতিবার আশুলিয়া থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা হওয়ার পর রাতে ঢাকার মিরপুরের কাফরুল এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

৬৫ বছর বয়সী এই অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে অভিযোগ, কয়েকদিন আগে মাদ্রাসার একজন আবাসিক ছাত্রীকে চা বানানোর কথা বলে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ করেন তিনি। বিষয়টি কাউকে না জানাতে ‘ভয়-ভীতিও দেখান’। ওই ছাত্রী মাদ্রাসা থেকে বের হওয়ার চেষ্টা করেও না পেরে এক সহপাঠীর মাধ্যমে চিঠি লিখে পরিবারকে পুরো ঘটনা জানায়। এরপর অধ্যক্ষ আজহার আত্মগোপনে চলে যান।

পরে ওই ছাত্রীর বাবা অধ্যক্ষকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন। স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ১১ বছর বয়সী মেয়েটিকে শুক্রবার ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয় বলে আশুলিয়ার থানার উপ পরিদর্শক (এসআই) আল মামুন কবির জানান।

আমাদের ফেইসবুক পেইজ