শেষ ম্যাচেও তামিমদের চাই ১০ পয়েন্ট

প্রকাশিত: ১১:১৫ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৪, ২০২১

শেষ ম্যাচেও তামিমদের চাই ১০ পয়েন্ট

খেলা ডেস্ক

বন্দরনগরীতে সোমবার তিন ম্যাচ সিরিজের শেষ ওয়ানডেতে মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ-ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ঢাকার মিরপুরে টানা দুই ম্যাচ জিতে সিরিজ নিজেদের করে নিয়েছে টাইগাররা।

তামিম ইকবালের নেতৃত্বাধীন দলের মিশন এখন হোয়াইটওয়াশ। সোমবার জিততে পারলে ৩-০ ব্যবধানে সিরিজ জয়ের প্রাপ্তির সঙ্গে যোগ হবে আইসিসি সুপার লিগের আরও ১০ পয়েন্ট। তাই ম্যাচটিকে হালকাভাবে নিচ্ছে না বাংলাদেশ।

জয়ের লক্ষ্যেই রোববার অনুশীলনে ঘাম ঝরিয়েছেন টাইগাররা। এদিন প্রথমে ক্যাচ অনুশীলন শেষে দীর্ঘক্ষণ মাঠের দুই প্রান্তে নেটে একনাগাড়ে চলে ব্যাটিং ও বোলিং। ঢাকার দুই ম্যাচে টাইগাররা বোলিংয়ে ভালো করলেও ব্যাটিংয়ে কিছু জায়গায় ঘাটতি ছিল, যদিও জয় এসেছে বড় ব্যবধানে অনেকটা বোলারদের কল্যাণে।

কমবেশি সবাইকে দীর্ঘ সময় ব্যাট করিয়েছেন প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো। সাকিব, মুশফিক, তামিম সবাই নেটে করেছেন ঘামঝরানো অনুশীলন। বোলিংয়ে তাসকিন, রুবেল, হাসান মাহমুদ ও মেহেদী হাসান মিরাজ। ঝালিয়ে নেওয়া হয় দলের সবাইকে।

আলোচনার কেন্দ্রে সোমবারের ম্যাচে ঢাকার উইনিং কম্বিনেশন নিয়ে নামবেন তামিমরা নাকি একাদশে আসবে পরিবর্তন। সিরিজ জিতে নির্ভার বাংলাদেশ সাইডবেঞ্চে থাকা খেলোয়াড়দের চট্টগ্রামে পরখ করে নিতে চায়।

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন বড় পরিবর্তনের আভাস দেননি। রুবেলের জায়গায় তাসকিন, ব্যাটিংয়ে তিনে ব্যর্থতার পরিচয় দেওয়া নাজমুল হোসেন শান্তর জায়গায় সৌম্য এবং মেহেদী হাসান মিরাজকে বিশ্রাম দিয়ে মেহেদী হাসানকে খেলানো হতে পারে।

মেহেদীর সঙ্গে অভিষেক হয়ে যেতে পারে শরিফুল ইসলামেরও। ঢাকার দুই ম্যাচে উইন্ডিজ আগে ব্যাট করে অল্প রানে (১২২ ও ১৪৮) আউট হওয়ায় বাংলাদেশ দলের মিডলঅর্ডার ব্যাটসম্যানরা খেলার সুযোগ পাননি। তাই চট্টগ্রামে টস জিতলে টাইগাররা হয়তো ব্যাটিং নিয়ে মিডলঅর্ডারের পরীক্ষা নিতে চাইবে।

রোববার বিকালে অনুশীলনে নামে উইন্ডিজ। ঢাকার ব্যাটিং ব্যর্থতা ঘুচিয়ে তারা বড় স্কোর করতে চায়। হালকা শারীরিক কসরত শেষে ক্যারিবীয়রা নেমে পড়েন ব্যাটিংয়ে। দুই গ্রুপে বিভক্ত হয়ে দীর্ঘ সময় চলে তাদের ব্যাটিং মহড়া। শেষ ম্যাচ জিতে সম্মান বাঁচাতে চায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

দুই বছর তিন মাস পর জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে ওয়ানডে হচ্ছে। করোনার কারণে দীর্ঘ সময় এখানে খেলা না হওয়ায় মাঠ ও উইকেটের পরিচর্যার জন্য যথেষ্ট সময় মিলেছে। সবুজ ঘাস মাঠে।

সর্বশেষ এখানে ২০১৮ সালের ২৬ অক্টোবর বাংলাদেশ দল জিম্বাবুয়ের বিরুদ্ধে খেলেছিল একটি ওয়ানডে। সেই ম্যাচে বাংলাদেশ জিতেছিল সাত উইকেটে। ২০১৯ সালে টেস্ট ম্যাচ হয়েছিল ৫ সেপ্টেম্বরে, আফগানিস্তানের বিপক্ষে। সেই ম্যাচে হেরে যায় টাইগাররা। স্বাস্থ্যবিধি মেনে খেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। থাকছে না দর্শক। টাইগারদের খেলা মানেই চট্টগ্রামে উৎসব। গ্যালারি ভরে যায় কানায় কানায়।

এবার সেই সুযোগ না থাকায় স্টেডিয়ামে বসে খেলা দেখার সুযোগ হচ্ছে না দর্শকদের। চট্টগ্রামের হিরো তামিম ইকবালের নেতৃত্বে এসেছে সিরিজ জয়। তারই নেতৃত্বে সাগরিকায় চলছে হোয়াইটওয়াশের আয়োজন। কিন্তু মাঠ কাঁপাতে পারছেন না তামিমভক্তরা। তবে তারা ঘরে বসে হলেও নিশ্চয়ই কামনা করবেন তামিমের সাফল্য।

সংবাদ অনুসন্ধান ক্যালেন্ডার

আমাদের ফেইসবুক পেইজ