আজ থেকে খাদিমপাড়া হাসপাতালে করোনা চিকিৎসা শুরু

প্রকাশিত: ১:২৯ পূর্বাহ্ণ, জুন ২৭, ২০২০

আজ থেকে খাদিমপাড়া হাসপাতালে করোনা চিকিৎসা শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক :;

আজ থেকে করোনা চিকিৎসা শুরু করছে খাদিমপাড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। চিকিৎস্রা জন্য ইতোমধ্যে সকল প্রকার প্রস্তুতি সম্পন্ন্ করা হয়েছে। ৩১ শয্যাবিশিষ্ট সরকারি এই হাসপাতালটিতে সহযোগীতা করছে সিলেট কিডনী ফাউ-েশন। সিলেট কিডনি ফাউন্ডেশনের মহাসচিব কর্নেল (অব.) আবদুস সালাম বীরপ্রতীক জানিয়েছেন, ইতোমধ্যেই প্রয়োজনীয় সরঞ্জামও হাসপাতালে পৌঁছেছে। চিকিৎসা সেবা প্রদানের লক্ষ্যে ইতোমধ্যেই নার্স ও স্বেচ্ছাসেবী নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও সন্দিগ্ধদের সেবা দিতে সব ধরনের প্রস্তুতি গ্রহণ প্রায় সম্পন্ন। তিনি জানান, ফাউন্ডেশনের সভাপতি সিলেট কিডনি ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান, যুক্তরাষ্ট্রের টেম্পল ইউনিভার্সিটির মেডিসিন ও নেফ্রোলজি বিভাগের অধ্যাপক ও ফিলাডেলফিয়ার ড্রেক্সেল ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক ডা. জিয়াউদ্দিন আহমদের তত্ত্বাবধানে দেশ বিদেশের চিকিৎসকরা ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা ও পরামর্শ প্রদান করবেন। আনুষঙ্গিক ব্যয় নির্বাহের জন্য ইতোমধ্যে বড় অঙ্কের একটি তহবিলও গঠন করেছে কিডনি ফাউন্ডেশন।

জানতে চাইলে স্বাস্থ্য অধিদফতর সিলেট বিভাগীয় কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক ডা. আনিসুর রহমান বলেন, ‘খাদিমপাড়া হাসপাতাল আর দক্ষিণ সুরমা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স মিলে করোনা চিকিৎসায় সিলেটে ৬২ শয্যা বাড়ছে। কিডনি ফাউন্ডেশন, প্রবাসীরা এক্ষেত্রে সহযোগিতা করেছেন। তবে সরকারি ব্যবস্থাপনায় হাসপাতাল দুটি চলবে। এর মধ্যে শনিবার চালু হচ্ছে খাদিমপাড়াস্থ হাসপাতালটি। তিনি জানান, খাদিমপাড়াস্থ হাসপাতালে বর্তমানে সিলিন্ডার দিয়ে অক্সিজেনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। পরবর্তীতে স্থায়ীভাবে অক্সিজেন সরবরার ব্যবস্থার কাজ করা হবে।

এদিকে, খাদিমপাড়াস্থ হাসপাতালে তিনটি শিফটে চিকিৎসক, নার্স ও অন্যান্যরা কাজ করবেন বলে জানিয়েছেন সিলেটের সিভিল সার্জন ডা. প্রেমানন্দ মন্ডল। তবে কতো জন চিকিৎসক, নার্স সেখানে দায়িত্বে থাকবেন প্রতি শিফটে, তা নিশ্চিত করতে পারেননি তিনি।

সিলেট কিডনি ফাউন্ডেশনের মহাসচিব কর্নেল (অব.) আবদুস সালাম বীরপ্রতীক জানিয়েছেন, খাদিমপাড়া হাসপাতালে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও সন্দিগ্ধদের সেবা দিতে সব ধরনের প্রস্তুতি তারা গ্রহণ করছেন। এ হাসপাতালের আনুষঙ্গিক ব্যয় নির্বাহের জন্য ইতোমধ্যে বড় অঙ্কের একটি তহবিলও গঠন করেছে কিডনি ফাউন্ডেশন।

সিলেটে বর্তমানে শহীদ শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতাল থেকেই শুধু করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও সন্দিগ্ধদের চিকিৎসা প্রদান করা হচ্ছে। কিন্ত পরিস্থিতি পর্যালোচনায় রোগী বৃদ্ধির আশঙ্কা থেকে বিকল্প ভাবতে থাকে সিলেটের প্রশাসন। এক্ষেত্রে আর্থিক সহায়তায় এগিয়ে আসে সিলেট কিডনি ফাউন্ডেশন।

অপরদিকে ৩১ শয্যা হাসপাতাল টি করোনা রোগীদের জন্য আইসোলেশন সেন্টার করায়। আউটডোর রোগীদের জন্য খাদিমপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এডভোকেট আফছর আহমেদর আন্তরিকতায় খাদিমপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্সে ভবনে আউটডোর রোগীদের চিকিৎসা দেয়া হবে। খাদিমপাড়া ইউনিয়ন চেয়ারম্যান এডভোকেট আফছর আহমদ ফেইসবুকে বিস্তারিত লিখেছেন। উনার স্ট্যাটাসটি হুবহু তুলে ধরা হলোঃ আলহামদুলিল্লাহ, প্রস্তুত খাদিমপাড়া আইসোলেশন সেন্টার। আগামীকাল শনিবার উদ্বোধন হবে এই আইসোলেশন সেন্টার। সরকার, মাননীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী জনাব ড. এ কে আব্দুল মোমেন এমপি’র আন্তরিকতা এবং প্রবাসী দানশীল ব্যক্তিদের সহযোগিতা নিয়ে সিলেটে নতুন দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে যাচ্ছে কিডনী ফাউন্ডেশন। সে উপলক্ষে আগামীকাল রোজ শনিবার থেকে খাদিমপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ অফিস খাদিমপাড়া ৩১ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালের আউটডোর হিসেবে ব্যবহৃত হবে। যেহেতু শাপরান হাসপাতালে করোনা আইসোলেশন সেন্টার হয়েছে এবং এখানে করোনা রোগীর চিকিৎসা চলবে সেই কারণে আমি আমার খাদিমপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ অফিস হাসপাতালের আউটডোর হিসেবে ব্যবহার করার জন্য দিয়েছি। যাতে সাধারণ রোগীরা কষ্ট না পায় বা সাধারণ রোগীরা করোনা রোগীর সংস্পর্শে এসে তারা যাতে আক্রান্ত না হয়। তাই আগামীকাল রোজ শনিবার হতে খাদিমপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ অফিস খাদিমপাড়া মেডিকেলের আউটডোর হিসেবে ব্যবহৃত হবে। এখানে ডাক্তাররা রোগীদের চিকিৎসা সেবা প্রদান করবেন । এবং করোনা আক্রান্ত রোগীদের জন্য খাদিমপাড়া ৩১ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতাল ব্যবহৃত হবে আগামীকাল থেকে। আপনারা যারা আউটডোরে ডাক্তার দেখাবেন তারা অবশ্যই খাদিমপাড়া ৩১ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে না গিয়ে খাদিমপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ অফিসে চলে আসবেন সেখানেই আউটডোরে চিকিৎসা চলবে। সাধারণ রোগীদের কথা চিন্তা করে আমি এই খাদিমপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ অফিসকে আউট ডোর হিসেবে ব্যবহার করার জন্য বলেছি এবং আমার আহবানে সাড়া দিয়েছেন ডাক্তাররা। আমি চাই সবধরনের চিকিৎসা সেবা নির্বিঘ্নে চলুক।