শাহজালাল সার কারখানার বর্জ্যে চিলুয়া বিলের মৎস্য নিধনের অভিযোগ

প্রকাশিত: ৪:৩১ অপরাহ্ণ, জুলাই ১, ২০২০

শাহজালাল সার কারখানার বর্জ্যে চিলুয়া বিলের মৎস্য নিধনের অভিযোগ

ফেঞ্চুগঞ্জ প্রতিনিধি:: সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জে চিলুয়া বিলে নানা প্রজাতির মরা মাছ ভেসে উঠেছে।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, শাহজালাল সার কারখানার গ্যাসবর্জ্য জনীত কারণে চিলুয়া বিল সহ আশপাশের বিলগুলোতে এক সপ্তাহ ধরে বোয়াল, সরপুঁটি, বাউশ, কাতলা, আইড়, টেংরা মাছসহ হাজার হাজার দেশীয় প্রজাতির মরা মাছ পানিতে ভেসে উঠে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, চিলুয়া তিনডুবি বিল, চাতল ও এওলা ছড়ায় হাজার হাজার মাছ পানিতে ভাসছে। এলাকার হতদরিদ্র লোকজন ভেসে উঠা মরা মাছ নিয়ে যাচ্ছেন।
স্থানীয় কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়- ফেঞ্চুগঞ্জে শাহজালাল সার কারখানার বিষাক্ত এমোনিয়া গ্যাসের বর্জ্য পানি এওলাছড়া দিয়ে প্রবাহিত হয়ে চিলুয়াবিল ও চাতল বিলে গিয়ে মিলিত হয়েছে।

বারোহাল গ্রামের শামিম মিয়া বলেন, চিলুয়া বিলের পানি খেয়ে আমার পালিত হাঁসগুলো অসুস্থ হয়ে পড়ে। দু’দিনের মধ্যে শতাধিক হাঁস মারা যায়। আমি দিনমজুর মানুষ, আমার এই ক্ষতি কিভাবে পূরণ হবে।

কচুয়াবহর গ্রামের হেলাল উদ্দিন শামিম বলেন, সার কারখানার বর্জ্য পানির কারণে হাজার হাজার নানা প্রজাতির মাছ মরে ভেসে উঠছে। বিষাক্ত বর্জ্যের কারণে পানির ঘনত্ব বেড়ে যাওয়ায় অক্সিজেনের অভাবে মাছগুলো মরে যাচ্ছে।

চিলুয়া বিলের ইজারাদার বারোহাল মৎস্যজীবী সমবায় সমিতির সভাপতি নীলমণি বিশ্বাস বলেন, ইজারাকৃত চিলুয়া বিলে দেশীয় প্রজাতির নানা জাতের দশ লক্ষ টাকার পোনা মাছ কয়েকমাস পূর্বে অবমুক্ত করা হয়েছিলো। আমাদের প্রায় ৫০ লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এখন আমরা পথের ফকির হয়ে গেছি৷ কারখানার বিষাক্ত বর্জ্যে মাছ মরে গেছে বলে তিনি অভিযোগ করেন।

এ ব্যাপারে শাহজালাল সার কারখানার ব্যস্থাপক (প্রশাসন) মো. মিজানুর রহমান বলেন, আমাদের কারখানায় ইটিপি প্ল্যান্ট রয়েছে। সেখানে পানি পরিশোধিত হয়ে বাইরে যায়। বর্জ্য থাকার কথা না। বিলের ইজারাদার বা স্থানীয় কেউ বিষয়টি আমাদের জানান নি৷ মাছ মরে ভেসে উঠার খবরও আমরা পায়নি।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ