কাজের অগ্রগতিতে সকল সিটি করপোরেশনের মধ্যে প্রথম হয়েছে সিসিক

প্রকাশিত: ৬:২০ অপরাহ্ণ, জুলাই ২৬, ২০২০

কাজের অগ্রগতিতে সকল সিটি করপোরেশনের মধ্যে প্রথম হয়েছে সিসিক

নিজন্ব প্রতিবেদক :: সিলেট সিটি করপোরেশন বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তির কাজের অগ্রগতি বিবেচনায় দেশের সকল সিটি করপোরেশনের মধ্যে প্রথম হয়েছে। আর স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রনালয়ের ২৪ টি দপ্তর ও সংস্থার মধ্যে তৃতীয় স্থান লাভ করেছে সিসিক।

 

রবিবার সকালে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রনালয়ে থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ২০২০-২০২১ অর্থবছরের বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে এই ঘোষনা দেয়া হয়।

 

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলামের উপস্থিতিতে, মন্ত্রনালয়ের সিনিয়র সচিব হেলাল উদ্দিন ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরের বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তির কাজের অগ্রগতি মূল্যায়নের এই ফলাফল ঘোষনা দেন।

 

এতে সিসিক সকল সিটি করপোরেশনের মধ্যে প্রথম স্থান লাভ করে। আর মন্ত্রনালয়ের ২৪ টি দপ্তর ও সংস্থার মধ্যে তৃতীয় স্থান অর্জন করে পর্যটন নগরী খ্যাত সিলেট সিটি করপোরেশন।

 

উক্ত ভিডিও কনফারেন্সে সিলেট জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে থেকে যুক্ত থেকে সিসিকের পক্ষে ২০২০-২০২১ অর্থবছরের বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি স্বাক্ষর করেন প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও সরকারের যুগ্ম সচিব বিধায়ক রায় চৌধুরী।

 

এসময় উপস্থিত ছিলেন সিসিকের প্রধান প্রকৌশলী নূর আজিজুর রহমান, নির্বাহী প্রকৌশলী (বিদ্যুৎ) মো. রুহুল আলম ও সহকারী প্রকৌশলী (বিদ্যুৎ) জয়দেব বিশ^াস।

 

সিলেট সিটি করপোরেশনের এমন সাফল্য নগরবাসির প্রতি উৎসর্গ করে মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, সিসিকের তুলনামূলক অগ্রগতি ও উন্নয়ন নগরবাসীর সহযোগিতায় সম্ভব হয়েছে। নাগরিকদের সার্বিক সহযোগিতায় ও সিসিকের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অক্লান্ত পরিশ্রমের পুরস্কার হিসাবে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রনালয় এ স্বীকৃতি দিয়েছেন।

 

সিসিক মেয়র বলেন, স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলামের দিক নির্দেশনায় এবং মন্ত্রনালয়ের সকল পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সহযোগিতায় সিলেট সিটি করপোরেশন ২০১৮-২০১৯ অর্থ বছরে বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি অনুসারে প্রকল্প বাস্তবায়নে লক্ষমাত্রা অর্জন করে। সিসিকের উন্নয়ন ধারবাহিকতা অব্যাহত রাখতে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন তিনি।

 

সিসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও সরকারের যুগ্ম সচিব বিধায়ক রায় চৌধরী বলেন, সিসিকের এই উন্নয়ন সাফল্যের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে সকল কর্মকর্তা কর্মচারী নিরলসভাবে কাজ করছেন। করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে ২০২০-২০২১ সালের বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি করা হয়েছে। মন্ত্রনালয়ের দিক নিদের্শনায় এ চুক্তির বাস্তবায়নে ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরের মতো সিসিক সফল হবে বলেই প্রত্যাশা করেন তিনি।

 

উল্লেখ, ই-নথি কার্যক্রমে সিলেট সিটি করপোরেশন একাধিকবার প্রথম স্থানে থাকলেও দেশের সবকটি সিটি করপোরেশনের মধ্যে বর্তমানে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে। সিসিকের নিজস্ব ল্যাবে কর্মকর্তা কর্মচারীদের নিয়মিতভাবেই ই-নথি সংক্রন্ত প্রশিক্ষন দেয়া হয়।

##

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সংবাদ অনুসন্ধান ক্যালেন্ডার

MonTueWedThuFriSatSun
   1234
19202122232425
26272829   
       
  12345
2728     
       
28      
       
       
       
1234567
2930     
       

আমাদের ফেইসবুক পেইজ