তাকওয়া অর্জনে কোরবানি

প্রকাশিত: ১:৪৬ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ২৭, ২০২০

তাকওয়া অর্জনে কোরবানি

মো. আবু তালহা তারীফ

কোরবানি দিতে হবে মহান আল্লাহর উদ্দেশ্যে তাকে সন্তুষ্ট করার জন্য। এর অন্যথা হলে কোরবানি প্রশ্নবিদ্ধ হবে। কোরবানি দিতে হবে তাকওয়া অর্জনের জন্য। হৃদয়ের মধ্যে যে পশুত্ব রয়েছিল সেটিকে আমরা কোরবানি দিতে না পারলে তা হবে দুর্ভাগ্যজনক। কোরবানির আগে হৃদয়ের ভিতরে যে অহংকার হিংসা দেমাক ছিল কোরবানির পর তা রয়েই যাবে। আগে যেমন ছিলাম এখনো তাই রয়ে গেলাম, হৃদয়কে সাদামাটা করা গেল না। কোরবানির পশু জবাইর মাধ্যমে নিজের হৃদয়ের মধ্যে যে একটি পশুত্বভাব রয়েছে সেই পশুত্বকে কোরবানি করা জরুরি ছিল। পশু কোরবানির মাধ্যমে নিজের হৃদয়কে পরিবর্তন করতে হবে। তাই কোরবানির পশু কত বড় বা কত দামি এটা বড় কথা নয়, বড় কথা হলো কোন প্রেরণায় কোরবানি দেওয়া হয়েছে। মহান আল্লাহতায়ালা বড় পশু দেখেননি। তিনি দেখেছেন কোরবানিদাতার অন্তর বা তাকওয়া কোনদিকে ছিল। মহান আল্লাহতায়ালা বলেন, ‘আল্লাহপাকের কাছে এর গোশত ও রক্ত পৌঁছায় না বরং তোমাদের আন্তরিকতা শ্রদ্ধা ও তাকওয়াই পৌঁছায়’। সূরা হজ্জ-৩৭।

কোরবানির পশুর কোনো অংশ আল্লাহর কাছে পৌঁছায় না। পৌঁছায় কোরবানিদাতার তাকওয়া। শুধু কোরবানি করলেই হবে না। হালাল সম্পদ দ্বারা কোরবানি করতে হবে। আল্লাহতায়ালাকে সন্তুষ্টি ও তাকওয়া অর্জন করার জন্য যেমন কোরবানি করতে হবে তেমনিভাবে আল্লাহতায়ালাকে সন্তুষ্টি করার জন্য নামাজ আদায় করতে হবে। আমরা কোরাবানি করলাম অথচ ফজর, জোহর, আসর, মাগরিব ও এশার নামাজ আদায় করলাম না, তাহলে সেই কোরবানি কতটুকু আমার উপকার হবে সেটিই বড় একটি বিষয়। আমরা নামাজ পড়লাম না কোরবানির পশুর গোশত নিয়ে ব্যস্ত থাকব, এমনটা করা ঠিক হবে না। সবসময় নামাজকে প্রাধান্য দিতে হবে। মহান আল্লাহ কোরবানির আগেই নামাজের কথা প্রথমে বলেছেন। ইরশাদ হচ্ছে, ‘আমার নামাজ, আমার কোরবানি, আমার জীবন, আমার মরণ সবকিছু মহান আল্লাহর জন্য’। সূরা আনয়াম-১৬২। প্রিয় পাঠক, আসুন পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়ার জন্য চেষ্টা করি পাশাপাশি আল্লাহ আমাকে কোরবানি দেওয়ার সামর্থ্য দিয়েছেন, সেই জন্য দুই রাকাত শুকরিয়াতান নামাজ আদায় করি। একই সঙ্গে দুই হাত তুলে দোয়া করি যেন কোরবানি আল্লাহ কবুল করেন এবং আগামী বছর কোরবানি দিতে পারি সেই পর্যন্ত হায়াত বাড়িয়ে দেন। আর আমরা যারা কোরবানি দিতে পারিনি, সামর্থ্য নেই আমরাও দুই রাকাত নামাজ আদায় করে সামর্থ্য চেয়ে আল্লাহর দরবারে দোয়া করি, যেন আগামী বছর আমাদের সামর্থ্য দান করেন। আল্লাহ আমাদের সবার মনের জায়েজ আশা কবুল করেন। আমিন।
লেখক : ইসলামবিষয়ক গবেষক।

সুত্র : বাংলাদেশ প্রতিদিন

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সংবাদ অনুসন্ধান ক্যালেন্ডার

MonTueWedThuFriSatSun
   1234
26272829   
       
  12345
2728     
       
28      
       
       
       
1234567
2930     
       

আমাদের ফেইসবুক পেইজ