বড়লেখায় ট্রিপল মার্ডার মামলার আরও ২ আসামিকে গ্রেফতার করেছে সিআইডি

প্রকাশিত: ৬:০৭ অপরাহ্ণ, আগস্ট ৭, ২০২০

বড়লেখায় ট্রিপল মার্ডার মামলার আরও ২ আসামিকে গ্রেফতার করেছে সিআইডি

নিজস্ব প্রতিবেদক, মৌলভীবাজার :: মৌলভীবাজারের বড়লেখায় চাঞ্চল্যকর ট্রিপল মার্ডার মামলার আরও ুই আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। এরা হলেন মামলার এজাহারভুক্ত ১ নং আসামি শরাফত আলী ও ২ নং আসামি মারফত আলী। বৃহস্পতিবার (৬ আগস্ট) তারে গ্রেফতার করে বড়লেখা আদালতে সোপর্দ করা হয়।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সিআইডি’র মৌলভীবাজার কার্যালয়ের পুলিশ পরিদর্শক বিকাশ চন্দ্র াস মামলার মূলরহস্য উঘাটনের লক্ষ্যে ুজনকে জিজ্ঞাসাবারে জন্য ৫ দিন করে রিমান্ড আবেদন করেন। শুনানি শেষে বড়লেখা আদালতের জ্যেষ্ঠ বিচারিক ম্যাজিস্ট্রেট হরিদাস কুমার ুই আসামির ৩ নি করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এর আগে গত ২৬ জুলাই রাতে বড়লেখা উপজেলার সুজানগর ইউনিয়নের আজিমগঞ্জ বাজার এলাকা থেকে মামলার এজাহারভুক্ত ৪ নম্বর আসামিকে গ্রেফতার করে সিআইডি।
মামলার আরও ুই আসামিকে গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চত করে তদন্তকারী কর্মকর্তা সিআইডির মৌলভীবাজার কার্যালয়ের পুলিশ পরির্শক বিকাশ চন্দ্র াস বৃহস্পতিবার (৬ আগস্ট) রাতে মুঠোফোনে বলেন, মূল রহস্য উঘাটনের লক্ষ্যে ুজনকে রিমান্ডে এনে নিবিড়ভাবে জিজ্ঞাসাবারে নিমিত্তে ৫ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হলে আদালত ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।
উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের ১৯ ডিসেম্বর রাতে বড়লেখা উপজেলার সুজানগর ইউনিয়নের ভোলারকান্দি গ্রাম থেকে কাতার প্রবাসী আকামত আলীর স্ত্রী মাজেদা বেগম (৩৬), মেয়ে লাবণী বেগম (৭) ও ছেলে ফারুক আহমদের (৪) ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় নিহত গৃহবধু মাজেদার চাচাতো ভাই ইমরান আলী ২১ ডিসেম্বর রাতে বড়লেখা থানায় মামলা করেন (নম্বর-৮)। এতে মাজেদা বেগমের চাচা শ্বশুর শরাফত আলীকে প্রধান আসামি করে ৯ জনের নাম উল্লেখসহ আরও ৭-৮ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করেন।
মামলার পর ওই বাড়ির তিন নারীকে আটক করা হয়েছিল। কিন্তু তাদের থেকে গুরুত্বপূর্ণ কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। মা-সন্তানসহ তিনজনের মৃত্যু ঘিরে নানা রহস্যের সৃষ্টি হয়। তবে এটি পরিকল্পিত একটি হত্যাকান্ড বলে পুলিশ ও এলাকাবাসী ধারণা করছিলেন। অথচ মৃত্যু রহস্য উদঘাটন করতে পারেনি থানা পুলিশ। কয়েক মাস পর মামলাটি পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) এ স্থানান্তর হয়। পিবিআই’র তদন্ত কর্মকর্তা করে প্রায় বছর খানেক পর আদালতে প্রতিবেদন াখিল করেন। তবে আালত পর্যালোচনা করে প্রতিবেদন গ্রহণ না করে স্বপ্রণোদিত হয়ে মামলাটি অধিকতর তদন্তের জন্য সিআইডিকে নির্দেশ দেন।

সংবাদ অনুসন্ধান ক্যালেন্ডার

MonTueWedThuFriSatSun
1234567
15161718192021
22232425262728
293031    
       
22232425262728
2930     
       
  12345
2728     
       
28      
       
       
       
1234567
2930     
       

আমাদের ফেইসবুক পেইজ