৩৭ দিন পর খুলেছে কমলগঞ্জের দলই চা বাগান কাজে যোগ দিলো চা শ্রমিকরা

প্রকাশিত: ৫:২৮ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৩, ২০২০

৩৭ দিন পর খুলেছে কমলগঞ্জের দলই চা বাগান কাজে যোগ দিলো চা শ্রমিকরা

স্বপন দেব, নিজস্ব প্রতিবেদক :: মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার মাধবপুর ইউনিয়নের সীমান্তবর্তী লই চা বাগানে উপজেলা প্রশাসন, চা শ্রমিক নেতৃবৃ›, শ্রম অধিদপ্তরের কর্মকর্তা ও মালিক পক্ষের যৌথ বৈঠক শেষে ্রæততম সময়ে মামলা প্রত্যাহার ও বিতর্কিত ব্যবস্থাপককে বলীর আশ্বাসে ীর্ঘ ৩৭ নি বন্ধ থাকার পর বৃহস্পতিবার চা বাগান খুলেছে। বৈঠক শেষে বৃহস্পতিবার ুপুর সাড়ে ১২টা থেকে লই চা বাগানের শ্রমিকরা কাজে যোগ দিয়েছে। গত ২৭ জুলাই সন্ধ্যায় আকস্মিক কর্তৃপক্ষ নোটিশ দিয়ে দলই চা বাগান অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ করেছিল।
মালিক পক্ষের নোটিশে গত ২৮ জুলাই থেকে লই চা বাগান ীর্ঘ ৩৭ দিন বন্ধ ছিল। এ নিয়ে গত ২৯ জুলাই থেকে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগ তিন ফা বৈঠক, মৌলভীবাজার-৪ আসনের সংস সদস্য উপাধ্যক্ষ ড. মো. আব্দুস শহীদের নেতৃত্বে জেলা প্রশাসক ও জেলা পুলিশ সুপারের উপস্থিতিতে ১৭ আগষ্টের বৈঠকের পরও লই চা বাগান বন্ধ ছিল। এ নিয়ে শ্রীমঙ্গলস্থ শ্রম অধিদপ্তর কর্মকর্তার কার্যালয়ে কয়েক ফা বৈঠকের পরও কোন লাভ হয়নি। সর্বশেষ গত বুধবার মৌলভীবাজার-৪ আসনের সংসদ সদস্য উপাধ্যক্ষ ড. মো. আব্দুস শহীদের পরামর্শে ও নির্দেশনায় বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় আবারও লই চা বাগান বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন বাংলাশে শ্রম অধিদপ্তর শ্রীমঙ্গল কার্যালয়ের উপ-পরিচালক নাহিদুল ইসলাম, কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশেকুল হক, কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর, শ্রীমঙ্গল এর উপ-মহাপরিদর্শক মোহাম্মদ মাহবুবুল হাসান, কমলগঞ্জ থানার ওসি মো. আরিফুর রহমান, লই চা বাগান কোম্পানীর উর্ধতন কর্মকর্তাবৃ›, বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক রামভজন কৈরী, সহ সভাপতি পংকজ কন্দ, সাংগঠনিক সম্পাদক বিজয় হাজরা, অর্থ সম্পাদক পরেশ কালিন্দি, মনু-দলই ভ্যালী সভাপতি ধনা বাউরী, সাধারণ সম্পাদক নির্মল াশ পাইনকা, লই চা বাগান পঞ্চায়েত সভাপতি নায়েক, সাধারণ সম্পাদক সেতু রায়সহ চা শ্রমিক নেতৃবৃন্দ। শারিরীক অসুস্থতার জন্য বৈঠকে উপস্থিত না থাকলেও লই চা বাগান কোম্পানির এজিএম খালে মঞ্জুর খান মোবাইল ফোনে শ্রমিকদের াবী াওয়া মেনে নেয়ার আশ্বাস দেন। তবে লই চা বাগানের ভারপ্রাপ্ত ব্যবস্থাপক মো. জাকারিয়াসহ কর্মকর্তাবৃ› উপস্থিত ছিলেন।
বৈঠকে ব্যাপক আলোচনা শেষে বিতর্কিত লই চা বাগানের ব্যবস্থাপক আমিনুল ইসলামকে বলী ও চা শ্রমিকদের জন্য বন্ধকালীন মজুরী ও বাগান কতৃপক্ষের ায়েরকৃত মামলা দ্রæততম সময়ে প্রত্যাহারের আশ্বাস ওেয়া হয়। এর পর বেলা সাড়ে ১২টা থেকে লই চা বাগানের শ্রমিকরা ীর্ঘ ৩৭ দিন পর প্লান্টেশন এলাকায় চা পাতা উত্তোলন কাজে যোগ দেয়।
বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক ও কমলগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান রাম ভজন কৈরী বলেন, লই চা বাগানের বিতর্কিত ব্যবস্থাপক আমিনুল ইসলামের বাগানে প্রবেশ না করা, চা শ্রমিকরে জন্য বন্ধকালীন মজুরি দেওয়া ও শ্রমিক নেতৃবৃন্দের নামে ায়েরকৃত মামলা দ্রæততম সময়ের মধ্যে প্রত্যাহারের আশ্বাস প্রান করেন মালিক পক্ষ। এ অশ্বাসে সন্তোষ প্রকাশ করে ীর্ঘ ৩৭ নি পর লই চা বাগানের শ্রমিকরা বৃহস্পতিবার ুপুর থেকে কাজে যোগ দিয়েছেন।
কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশেকুল হক ীর্ঘ ৩৭ নি পর লই চা বাগান খোলা ও চা শ্রমিরে কাজে যোগদানের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, লই চা বাগান মালিক পক্ষের ওেয়া আশ্বাস পূরণ হলে আর লই চা বাগানে সমস্যা থাকার কথা নয়। তিনি জরুরী ভিত্তিতে লই চা বাগানের শ্রমিকদের মানবিক সহায়তা প্রদানের আশ্বাস দেন।
উল্লেখ্য, গত ২৭ জুলাই সন্ধ্যায় শ্রম আইন লঙ্ঘন করে লই চা বাগান কর্তৃপক্ষ। পরে তারা চা বাগান বন্ধ ঘোষণা করে। পরনি ২৮ জুলাই সকাল থেকে বেআইনিভাবে বন্ধ করে দেওয়া এবং বিতর্কিত ব্যবস্থাপক আমিনুল ইসলামকে অপসারণের াবিতে আ›োলন শুরু করেন শ্রমিকরা। ২২ আগস্ট রাতে লই চা বাগান কোম্পানির এজিএম খালে মঞ্জুর খান বাদী হয়ে মাধবপুর ইউপি চেয়ারম্যান পুষ্প কুমার কানু, চা শ্রমিক নেতাসহ ১৩ জনের নামে গতিরোধ করে মারধর, গাড়ি ভাঙচুর ও টাকা ছিনতাইয়ের অভিযোগ এনে মামলা করেন।

সংবাদ অনুসন্ধান ক্যালেন্ডার

MonTueWedThuFriSatSun
1234567
15161718192021
22232425262728
293031    
       
22232425262728
2930     
       
  12345
2728     
       
28      
       
       
       
1234567
2930     
       

আমাদের ফেইসবুক পেইজ