“গোয়াইনঘাট পশ্চিম জাফলং এ ব্রীজ না থাকায় চারটি দ্বীপে বিভক্ত, জীবন যাত্রার মান অনুন্নত”

প্রকাশিত: ১২:০৬ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৯, ২০২০

“গোয়াইনঘাট পশ্চিম জাফলং এ ব্রীজ না থাকায় চারটি দ্বীপে বিভক্ত, জীবন যাত্রার মান অনুন্নত”

গোয়াইনঘাট প্রতিনধিঃ
যেকোনো দেশের বা অঞ্চলের অর্থনৈতিক উন্নয়নে যোগাযোগ ব্যবস্থা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। যোগাযোগ ব্যবস্থার উপর নির্ভর করে একটি দেশের, এলাকার উন্নয়ন কর্মকান্ড আবর্তিত হয়। যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি হলে শিক্ষা, কৃষিপণ্য, শিল্পের কাঁচামাল এবং শিল্পজাত পণ্য সামগ্রী সহজে ও স্বল্প ব্যয়ে স্থানান্তর করতে সুবিধা হয়। এর ফলে দেশের উৎপাদন বৃদ্ধি পায়, শিল্প ও ব্যবসার প্রসার ঘটে। এজন্য যোগাযোগ ব্যবস্থাকে অর্থনৈতিক উন্নয়নের হাতিয়ার হিসেবে বিবেচনা করা হয় বাংলাদেশ আকারে ছোট হলেও এখানে নানা রকম বৈশিষ্ট্য বিদ্যমান। এদেশে নদী-নালা, খাল-বিল ও হাওড় পরিপূর্ণ বলে উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে তোলা কঠিন।এদেশের আবহাওয়া সব সময় এক থাকে না। বর্ষাকালে দেশের অধিকাংশ জায়গা পানির নিচে চলে যায়। ফলে যোগাযোগ ব্যবস্থায় সমস্যা দেখা দেয়। বাংলাদেশের এই ভিন্ন বৈশিষ্টের কারণে এখানে নানা ধরণের যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে উঠেছে। বর্তমানে প্রায় সারাদেশকেই যোগাযোগ ব্যবস্থার আওতায় আনা হয়েছে। বর্তমান বিশ্বে যোগাযোগ ব্যবস্থা ও উন্নয়ন এখন সমার্থক শব্দে পরিণত হয়েছে।
প্রকৃতি কন্যা হিসাবে সারাদেশে এক নামে পরিচিত সিলেটের জাফলং।খাসিয়া জৈন্তা পাহাড়ের পাদদেশে অবস্থিত জাফলং প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের অপরুপলীলাভূমি। পিয়াইন নদীর তীরে স্তরে স্তরে বিছানো পাথরের স্তূপ জাফলংকে করেছেআকর্ষণীয়। সীমান্তের ওপারে ইনডিয়ান পাহাড় টিলা, ডাউকি পাহাড় থেকে অবিরামধারায় প্রবাহমান জলপ্রপাত, ঝুলন্ত ডাউকি ব্রীজ, পিয়াইন নদীর স্বচ্ছ হিমেলপানি,উঁচু পাহাড়ে গহিন অরণ্য ও শুনশান নিরবতার কারণে এলাকাটি পর্যটকদেরদারুণভাবে মোহাবিষ্ট করে। এসব দৃশ্যপট দেখতে প্রতিদিনই দেশী-বিদেশীপর্যটকরা ছুটে আসেন এখানে। প্রকৃতি কন্যা ছাড়াও জাফলং বিউটি স্পট, পিকনিকস্পট, সৌন্দর্যের রাণী- এসব নামেও পর্যটকদের কাছে ব্যাপক পরিচিত। ভ্রমনপিয়াসীদের কাছে জাফলং এর আকর্ষণই যেন আলাদা। সিলেট ভ্রমনে এসে জাফলং নাগেলে ভ্রমনই যেন অপূর্ণ থেকে যায়।
গোয়াইনঘাট উপজেলার বিশাল জনগোষ্ঠী নিয়ে গঠিত ২ নং পশ্চিম জাফলং ইউনিয়ন। জনগুরুত্বপূর্ণ এই ইউনিয়নে গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি স্থানে ব্রিজ না থাকায়, ইউনিয়নটি মোট চারটি দ্বীপে বিভক্ত। যার ফলে অনেক অসুবিধার সম্মুখীন হতে হয় বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষকে।মোট ছয়টি ব্রিজ হলেই পশ্চিম জাফলং ইউনিয়নের জীবন যাত্রার মান দ্রুত উন্নত হয়ে যাবে।জাফলং থেকে শুরু করে পশ্চিম জাফলং অাদর্শ দ্বাখিল মাদ্রাসা সংলগ্ন রাস্তারটি হাদার পাড়ের সাথে সংযোগ হতে হলেও প্রয়োজন ৩ টি ব্রিজ,যার ফলে দুই ইউনিয়ন এর মানুষের যোগাযোগব্যবস্থা উন্নত হবে, ব্যবস্যা বাণিজ্যের ব্যাপক সু্যোগ সুবিধা হবে।ডিজিটাল বাংলাদেশে গঠনের লক্ষ্যে এসব ব্রিজ নির্মাণ করা অত্যন্ত জরুরী। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল অলির খাল।
স্থানীয় এলাকাবাসী জানান, অলির খালের উপর ব্রিজ না থাকায় গোয়াইনঘাট উপজেলার পশ্চিম জাফলং ইউনিয়নের লাঠি,দ্বারিখেল কালিজুরী,প্রতাপপুর, হাজীপুর,লুনীসহ কয়েকটি গ্রামের কয়েক হাজার মানুষ সড়ক পথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। স্কুল, কলেজ ও বিভন্ন সরকারি/বেসরকারি প্রতিষ্টানে পড়ুয়া সহস্রাধিক শিক্ষার্থী প্রতিদিন নিজ প্রতিষ্টানে যেতে অলির খাল নৌকা যোগে পারাপার হতে হয়। অনেক সময় ওই খালে নৌকা থাকেনা। ফলে শিক্ষা প্রতিষ্টানগামী শিক্ষার্থীরা ফিরে যেতে হয় নিজের বাড়ি। আবার বিভিন্ন সময় এক সাথে শতাধিক শিক্ষার্থী জড়ো হয় খালটি পারাপারের জন্য এবং নৌকায় একসাথে সবাই উঠার করণে খালের মধ্যেখানে নৌকা ডুবিরও ঘটনা ঘটে। অলির খালের উপর ব্রিজ নির্মাণ হলে ইউনিয়নের বড় একটা অংশ চরম দুর্দশা থেকে মুক্তি পাবে।
যুগের পর যুগ কেটে গেছে কেউ কথা রাখেনি। অপেক্ষায় কেটেছে অনেক বছর।ব্রিজ না হওয়ার কষ্টে রয়েছেন এসব গ্রামের মানুষ। দুর্ভোগ সয়ে এখনো এলাকার মানুষ বর্ষায় খেয়া নৌকা ছাড়া চলার কোনো গতি নেই। ব্রীজ না হওয়ার কারনে এলাকার রাস্তা ঘাটেরও কোন উন্নয়ন হয়নি।
গোয়াইনঘাট উপজেলাকে যে পর্যটন এলাকা হিসাবে ঘোষনা করা হয়েছে তার বাস্তবায়ন করতে হলে এই ব্রীজ গুলো অবশ্যই প্রয়োজন যার ফলে পর্যটকরা সুবিধা পাবে একসাথে ৪টি পর্যটন এলাকা দেখার তা হল বল্লাঘাট জিরো পয়েন্ট মায়াবী ঝর্ণা,পানতুমাই মায়াবতী ঝর্ণা, লক্ষন ছড়া মায়াপরী ঝর্ণা,বিছনাকান্দি সাত পাহাড়ের মোহনা।কোথায় কোথায় ব্রীজ প্রয়োজন তা নিম্নে দেওয়া হলো:অলিরখালের উপর,হেক্ষাতের ঘাটের উপর,ডালার নদীর উপর,লংলাখাল স্কুল অথবা মনাইকান্দি মাদ্রাসার সংলগ্ন নদীর উপর,সাতবাক লুনী মধ্যবর্তী নদীর উপর,রাধানগর থেকে পরগনা বাজার নদীর উপর।
২ নং পশ্চিম জাফলং ইউনিয়ন বাসীকে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন থেকে যোগাযোগের সু ব্যবস্থা করে দিতে উপরিউক্ত ব্রিজগুলো নির্মাণের জন্য প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ এমপি’ সু দৃষ্টি কামনা করেন সর্বস্থরের জনসাধারণ।

সংবাদ অনুসন্ধান ক্যালেন্ডার

MonTueWedThuFriSatSun
1234567
15161718192021
22232425262728
293031    
       
22232425262728
2930     
       
  12345
2728     
       
28      
       
       
       
1234567
2930     
       

আমাদের ফেইসবুক পেইজ