লাব্বাইক লাব্বাইক ধ্বনিতে মুখর আরাফাত ময়দান

প্রকাশিত: ১২:৫৬ অপরাহ্ণ, জুন ১৫, ২০২৪

লাব্বাইক লাব্বাইক ধ্বনিতে মুখর আরাফাত ময়দান

পবিত্র হজ আজ
লাব্বাইক লাব্বাইক ধ্বনিতে মুখর আরাফাত ময়দান

অনলাইন ডেস্ক

 

পবিত্র হজ আজ। এদিন সূর্যোদয় থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত সৌদি আরবের মক্কার আরাফাতের ময়দানে অবস্থান করবেন সারাবিশ্ব থেকে জড়ো হওয়া লাখো মুসলিম। আরাফাতের ময়দানে অবস্থান করাই হজের মূল আনুষ্ঠানিকতা।

লাখো কণ্ঠে আরাফাতের ময়দানে আজ ধ্বনিত হবে ‘লাব্বাইক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক, লাব্বাইকা লা শারিকা লাকা লাব্বাইক, ইন্নাল হাম্?দা ওয়ান নি’মাতা লাকা ওয়াল মুল্?ক, লা শারিকা লাক।’ অর্থাৎ ‘আমি হাজির, হে আল্লাহ আমি হাজির, তোমার কোনো শরিক নেই, সব প্রশংসা ও নিয়ামত শুধু তোমারই, সব সাম্রাজ্যও তোমার।’ আনাদোলু, ইউরো নিউজ ও আল-জাজিরা।

পবিত্র হজ মহান আল্লাহর একটি বিশেষ বিধান। হজ শব্দের আভিধানিক অর্থ ‘ইচ্ছা করা’। হজ ইসলামের পাঁচটি স্তম্ভের একটি। আর্থিক ও শারীরিকভাবে সামর্থ্যবান সব মুসলমান পুরুষ ও নারীর ওপর হজ ফরজ। জিলহজ মাসের নির্দিষ্ট দিনে নির্দিষ্ট স্থানে অবস্থান করা এবং বিশেষ বিশেষ কাজে অংশগ্রহণই হলো হজ। এর আগে তীব্র গরমের মধ্যেই স্থানীয় সময় শুক্রবার ভোর থেকে হাজিরা ইহরাম বেঁধে মিনার উদ্দেশে যাত্রা করেন। এর মধ্য দিয়েই হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়।

এ বছর বিশ্বের ২০ লাখেরও বেশি মুসলিম হজ পালন করছেন। বাংলাদেশ থেকে হজে গেছেন ৮০ হাজারেরও বেশি মুসল্লি। এর মধ্যে ১৭ জনের মৃত্যু হয়েছে।

মক্কার গ্র্যান্ড মসজিদ থেকে ৭ কিলোমিটার উত্তর-পূর্বে অবস্থিত মিনা। মক্কা ও মুজদালিফার মধ্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থান এটি। এই উপত্যকাটি উত্তর ও দক্ষিণে পাহাড় দিয়ে ঘেরা এবং মসজিদুল হারামের সীমানার মধ্যে অবস্থিত। শুধু হজের সময়েই সেখানে মানুষের ভিড় জমে।

আরবি বর্ষপঞ্জিকার শেষ মাস জিলহজের ৮ তারিখ থেকে শুরু হয় হজ। এরপর ৯ জিলহজ আরাফাতের দিন শেষে ১০ জিলহজ পশু কোরবানি করেন হাজিরা। সৌদি আরবে গতকাল হিজরি সন ১৪৪৫ সালের জিলহজ মাসের ৮ তারিখ ছিল।

হজের আনুষ্ঠানিকতার প্রাথমিক পর্যায়ে হাজিদের স্বাগত জানাতে ব্যাপক প্রস্তুতি নেয় সৌদি কর্তৃপক্ষ। ৩০ হাজার হাজির থাকার জন্য মিনায় বহুতল আবাসিক টাওয়ার তৈরি করা হয়েছে।

এদিকে, সৌদিতে শুক্রবার গড় তাপমাত্রা ৪৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার সৌদি বার্তা সংস্থা এসপিএ জানিয়েছিল, তাপজনিত সম্ভাব্য অসুস্থতা ও হিটস্ট্রোক মোকাবিলায় চারটি হাসপাতাল প্রস্তুত রেখেছে কর্তৃপক্ষ।

এদিকে হাজিদের অনেকেই ইসরায়েল ও হামাসের মধ্যে আট মাস ধরে চলা যুদ্ধের ব্যাপারে দুঃখ প্রকাশ করেন। মরক্কোর ৭৫ বছর বয়সী জাহরা বেনিজাহরা কান্নাবিজড়িত কণ্ঠে এএফপিকে বলেন, ‘ফিলিস্তিনে আমাদের ভাই-বোন মারা যাচ্ছেন এবং আমরা নিজেদের চোখে তা দেখতে পাচ্ছি।’

অধিকৃত পশ্চিমতীর থেকে অনেক ফিলিস্তিনি হজ পালন করতে গেলেও অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকা থেকে কোনো ফিলিস্তিনি এবার হজে যেতে পারেননি। রাফা ক্রসিং ইসরায়েলের দখলে থাকায় এবং ভূখ-টি অবরুদ্ধ করে রাখায় গাজার ২৫০০ মুসল্লির এ বছর হজে যাওয়া সম্ভব হয়নি।

এর আগে সোমবার সৌদি বাদশাহ সালমান গাজা উপত্যকায় হামলায় শহীদ ও আহতদের পরিবার থেকে ১ হাজার হজযাত্রীকে আমন্ত্রণ জানানোর জন্য একটি আদেশ জারি করেন। আর এ বছরের হজে ফিলিস্তিনের হাজিদের বিশেষ সম্মান জানানো হবে।

অন্যদিকে হজের দায়িত্বে থাকা মন্ত্রী তৌফিক আল-রাবিয়াহ গত সপ্তাহে সতর্ক করে দিয়ে বলেন, হজের সময় ‘কোনো রাজনৈতিক কার্যকলাপ’ বরদাশত করা হবে না। তবে হাজিরা কীভাবে ফিলিস্তিনিদের সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করতে পারেন, তা স্পষ্ট নয়।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সংবাদ অনুসন্ধান ক্যালেন্ডার

MonTueWedThuFriSatSun
1234567
15161718192021
22232425262728
293031    
       
22232425262728
2930     
       
  12345
2728     
       
28      
       
       
       
1234567
2930     
       

আমাদের ফেইসবুক পেইজ